আপনি আছেন
প্রচ্ছদ > জাতীয় > সড়কে ময়লার কনটেইনার পাশেই ভ্রাম্যমাণ কাঁচাবাজার

সড়কে ময়লার কনটেইনার পাশেই ভ্রাম্যমাণ কাঁচাবাজার

ifty-mazer-road
প্রতিচ্ছবি প্রতিবেদক

রাজধানীর মিরপুর ১ নম্বর মাজার রোডের উত্তর পাশের সড়কে তিনটি ময়লার কনটেইনার রেখেছে সিটি কর্পোরেশন। সড়কের ওপরেই কনটেইনার ঘেঁসে বসেছে কাঁচাবাজার। বাজার করতে আসা ক্রেতারা ময়লা-আবর্জনার দুর্গন্ধ উপেক্ষা করেই চালিয়ে যাচ্ছেন কেনাকাটা। বাধ্য হয়েই এ পথে চলাচল করছেন পথচারীরা।

দেখা যায়, মাজার রোডের ওপরে রাখা হয়েছে ময়লার তিনটি কনটেইনার। পথচারীরা বাধ্য হয়ে মূল সড়ক ব্যবহার করছে। ময়লার দুর্গন্ধে নাকে হাত দিয়ে অনেক ক্রেতাকে বাজার করতে দেখা যায়।

পথচারী আবদুল্লাহ বলেন, এ সড়কের অবস্থা খুব খারাপ। গন্ধে এখানে আসা যায় না। ফুটপাত নাই। মূল সড়ক দিয়ে হাঁটতে হচ্ছে। ১৫ বছর ধরেই এখানে ময়লা-আবর্জনা ফেলা হচ্ছে। কেউ কোনো ব্যবস্থা নিচ্ছে না। আমাদের কথা কে শুনবে। আমাদের কষ্ট কে দেখবে।

ঢাকা উওর সিটি কর্পোরেশন ৮ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর কাজী টিপু সুলতান বলেন, আগে যে অবস্থায় ময়লা রাখা হতো, এখন তো অনেক উন্নতভাবে রাখা হচ্ছে। আমরা চেষ্টা করছি ভালো কিছু করার। আমার ওয়ার্ডে একটি এসটিএস (ময়লার ভাগাড়) করা হয়েছে। আর একটি এসটিএস করার জন্য সিটি কর্পোরেশন অঞ্চল-২ এ আবেদন করা হয়েছে। প্রক্রিয়াধীন আছে এসটিএস হয়ে গেলেই কনটেইনার সরানো হবে। এসটিএস তৈরি না হওয়া পর্যন্ত ময়লার কনটেইনার এখানে থাকবে।

বাজার করতে আসা আবদুল খালেক বলেন, এখানে প্রচুর দুর্গন্ধ। ভাইরাস, ব্যাকটেরিয়া ছড়াচ্ছে। অনেকেই স্বাস্থ্যগত সমস্যায় ভুগছেন। ময়লার গোডাউন তো ১৫ বছর ধরে এখানে দেখছি। আগে খোলা আকাশের নিচে রাখা হতো। এখন কনটেইনারে রাখে। কোনো লাভ হয় না। ময়লা যখন ট্রাকে করে নিয়ে যায়, সড়কে পড়তে পড়তে যায়। কর্তৃপক্ষরা বুঝেও কোনো কিছু করছে না। বলে আর কি হবে।

তরকারি দোকানদার আবদুল মজিদ বলেন, এখানে ১৫ বছর ধরে ময়লা ফেলা হয়। কখনও মাজারের কাছে। কখনও মুক্তিযোদ্ধা মার্কেটের সামনে। এখানে আগপিছ করে ময়লা ফেলা হচ্ছে। আগে খোলা আকাশের নিচে ফেলা হতো এখন কনটেইনারে রাখা হয়, ট্রাক দিয়ে নিয়ে যায়। আমাদের দোকান চালাতে অনেক সমস্যা হয়। গন্ধের কারণে বেঁচা-বিক্রি অনেক কমে গেছে।

 

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন:
symphony

অনুরূপ সংবাদ

উপরে