আপনি আছেন
প্রচ্ছদ > চট্টগ্রাম > চট্রগ্রামের রোহিঙ্গাদের ছড়িয়ে পড়া ঠেকাতে ২৭ টি চেক পোস্ট

চট্রগ্রামের রোহিঙ্গাদের ছড়িয়ে পড়া ঠেকাতে ২৭ টি চেক পোস্ট

প্রতিচ্ছবি চট্রগ্রাম প্রতিনিধি:

রোহিঙ্গাদের বিভিন্ন স্থানে ছড়িয়ে পড়া ঠেকাতে চট্টগ্রামের বিভিন্ন এলাকায় ২৭ টি চেক পোস্ট বসিয়েছে পুলিশ। এমনকি রোহিঙ্গারা যাতে লোকালয়ে মিশে যেতে না পারে সে জন্য সতর্ক রয়েছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

কিন্তু মানুষের মৌলিক চাহিদাগুলো পুরণ করতে না পারলে শুধু পুলিশ দিয়ে বিপুল এই জনগোষ্টিকে নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব হবে না বলে মনে করেন নিরাপত্ত্বা বিশ্লেষকেরা।

এদিকে  রোহিঙ্গারা এভাবে ছড়িয়ে পড়লে সন্ত্রাস,রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক, অপসংস্কৃতিসহ  বেকারত্ব ও মাদকাসক্তির প্রভাবের পাশাপাশি যুবসমাজের অবক্ষয়ের আশংকা করছেন সমাজ বিজ্ঞানীরা।

কক্সবাজার টেকনাফসহ মিয়ানমার সীমান্তে সরকার নির্ধারিত অস্থায়ী ক্যাম্পের আটকে রাখা যাচ্ছে না রোহিঙ্গা নাগরিকদের। তারা ছড়িয়ে পড়ছে বৃহত্তর চট্টগ্রাম জুড়ে। এতে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতির আশংকা করছে পুলিশ। তাই রোহিঙ্গা শরনার্থীদের নগরে ছড়িয়ে পরা ঠেকাতে ঘাটে ঘাটে চেকপোস্ট বসিয়েছে তারা। এমনকি এই পর্যন্ত চট্টগ্রামের ১৬টি থানার মধ্যে পটিয়া,বাঁশখালী,দোহাজারীসহ আরো কয়েকটি থানা থেকে ১৪৫ জনকে আটক করে  সরকার নির্ধারিত অস্থায়ী ক্যাম্পে পাঠিয়ে দেয়ার কথা বলেন জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মুহাম্মদ রেজাউল মাসুদ রেজা।

নিরাপত্বা বিশ্লেষক মেজর ( অব:) এমদাদুল ইসলাম বলেন, দীর্ঘদিনের শোষণ ও বঞ্চনার ভয়াবহ প্রভাব রয়েছে রোহিঙ্গা নাগরিকদের ওপর। তাই মৌলিক চাহিদাগুলো পুরণ করতে না পারলে তাদেরকে ক্যাম্পের গন্ডিতে আটকে রাখা সম্ভব হবে না।

অন্যদিকে রোহিঙ্গারা চট্টগ্রামসহ বিভিন্ন স্থানে এভাবে ছড়িয়ে পড়লে সন্ত্রাস এবং মাদকাসক্তির প্রভাবের পাশাপাশি যুবসমাজের অবক্ষয়ের আশংকা করছেন সমাজ বিজ্ঞানী ড. ইফতেখার উদ্দিন এবং প্রফেসর ইন্দ্রজিৎ কুন্ডু। দ্রুত এই সমস্যা সমাধানের ঈঙ্গিতও তাদের মুখে।

তাই কুটনৈতিক তৎপরতার মাধ্যমে মানবাধিকার নিশ্চিত করে রোহিঙ্গাদের তাদের নিজ দেশে ফেরত পাঠানোর বিকল্প নেই বলে মনে করেন সংশ্লিষ্টরা।

জয় নয়ন / আর এইচ

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন:

অনুরূপ সংবাদ

উপরে