আপনি আছেন
প্রচ্ছদ > আন্তর্জাতিক > রাখাইনে ‘মানবতার বিরুদ্ধে অপরাধ’

রাখাইনে ‘মানবতার বিরুদ্ধে অপরাধ’

রাখাইনে 'মানবতার বিরুদ্ধে অপরাধ'

প্রতিচ্ছবি ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক:

মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে গ্রামের পর গ্রাম জ্বালিয়ে দেয়া হচ্ছে। অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশল বলছে, গুলি করে, ঘর বাড়ি পুড়িয়ে দিয়ে রোহিঙ্গাদের দেশ ছাড়তে বাধ্য করছে সেনারা। এ অবস্থায় বাংলাদেশে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের সংখ্যা ১০ লাখ ছাড়াতে পারে বলে আশঙ্কা করেছে আর্ন্তজাতিক অভিবাসন সংস্থা

এদিকে সহিংসতা বন্ধে মিয়ানমারকে উদ্যোগ নেয়ার আহ্বান জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্য। স্যাটেলাইট ইমেজে উঠে এসেছে মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে গ্রামের পর গ্রাম জ্বালিয়ে দেয়ার ছবি।

burma_arakan2

অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল বলছে, নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যরা গ্রাম ঘিরে রেখে বেসামরিক মানুষদের ওপর নির্বিচারে গুলি চালাচ্ছে। ঘর বাড়ি পুড়িয়ে রোহিঙ্গাদের দেশ ছাড়তে বাধ্য করছে। অ্যমনেস্টি বলছে তাদের কাছে এর প্রমাণও আছে। সংস্থাটি বলছে, গত তিন সপ্তাহ ধরে গ্রামের পর গ্রাম আগুন ধরিয়ে, নির্যাতন চালিয়ে তাদেরকে দেশছাড়া করা হচ্ছে। আর এসবের স্যাটেলাইট ফুটেজও তাদের কাছে আছে।

সংস্থাটির ক্রাইসিস রেন্সপন্স ডিরেক্টর তিরানা হাসান জানান, মিয়ানমার জাতিগতভাবে রোহিঙ্গা নিধন করছে এতে কোনো সন্দেহ নেই । এ বর্বরতাকে মানবতার বিরুদ্ধে অপরাধ হিসেবে দেখছে অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল। সহিংসতা থেকে বাঁচতে প্রতিদিনই হাজারো রোহিঙ্গা বাংলাদেশে প্রবেশ করছে।

burma_arakan3

আন্তর্জাতিক অভিবাসন সংস্থা আইওএম জানিয়েছে, এরকম চলতে থাকলে রোহিঙ্গা শরনার্থীর সংখ্যা ১০ লাখে পৌঁছাতে পারে। এ অবস্থায় চরম খাদ্য সংকটে আছে রোহিঙ্গারা। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা জানিয়েছে, আশ্রয় ও খাদ্য সংকটে আছে রোহিঙ্গারা।

এদিকে সহিংসতার এসব ঘটনাকে বর্বরতা উল্লেখ করে মিয়ানমারের নেত্রী আং সান সুচিকে উদ্যোগ নেয়ার কথা বলেছেন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী রেক্স টিলারসন ও বিট্রিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী বরিস জনসন। চলতি সপ্তাহের শেষে মিয়ানমার সফরে যাচ্ছেন মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের উপসহকারী প্যাট্রিক মারফি। তিনি দেশটির সরকারের সাথে রোহিঙ্গা সংকট নিয়ে আলোচনা করবেন বলে জানিয়েছে মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

এ আর/ডিডিআর

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন:

অনুরূপ সংবাদ

উপরে