আপনি আছেন
প্রচ্ছদ > বিনোদন-সংস্কৃতি > জীবনের যত রঙ নিয়ে পেন্সিলের প্রথম বর্ষপূর্তি

জীবনের যত রঙ নিয়ে পেন্সিলের প্রথম বর্ষপূর্তি

জীবনের যত রঙ নিয়ে পেন্সিলের প্রথম বর্ষপূর্তি

নাজমুন নাহার তুলি:

সাড়ম্বরে উদযাপিত হচ্ছে শিল্প-সাহিত্য বিষয়ক ফেইসবুক গ্রুপ ‘পেন্সিল’র প্রথম বর্ষপূর্তি। মঙ্গলবার বিকেল ৪টায় বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় চিত্রশালায় “আনন্দলোকে মঙ্গলআলোকে” সঙ্গীতের মধ্য দিয়ে শুরু হয় ৫ দিনের অনুষ্ঠানের। উদ্বোধনীতে অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে তারুণ্যের ভার্চুয়াল শিল্প-সাহিত্য চর্চাকে অনুপ্রেরণা দেন বহুমাত্রিক শিল্পী অধ্যাপক হামিদুজ্জামান খান, ভালোবাসা ও দ্রোহের কবি হেলাল হাফিজ, বরেণ্য আলোকচিত্রশিল্পী নাসির আলী মামুন।
অনুষ্ঠানে নাসির আলী মামুন বলেন, “আমাদের জীবন যদিও এখন ফেসবুকে বন্দি, তবুও এর অনেক উপকারিতাও আছে। একজন ঘরবন্দি মানুষ খুব সহজেই অন্যের সাথে যোগাযোগ করতে পারছেন। আমাদের সময় ছবি তোলাকে পেশা হিসেবে নেবে কেউ চিন্তাও করতে পাজীবনের যত রঙ নিয়ে পেন্সিলের প্রথম বর্ষপূর্তিরতো না। তখন সারাদেশে ক্যামেরাও ছিলো হাতে গোনা। অথচ এখন কতো সুযোগ আছে নিজের আলোকচিত্রী মনোভাবকে প্রকাশ করার।” হতাশ না হয়ে সবাই যাতে সামনের দিকে এগিয়ে যায়- বক্তৃতায় সেই অনুপ্রেরণাই জোগান এই নন্দিত আলোকচিত্রশিল্পী।

এরপর মঞ্চে আসেন কবি হেলাল হাফিজ। উদ্যোক্তাদের প্রশংসা করে বলেন, “আমি খুব সামান্য কিছু কবিতা লিখেছি। তবুও তা যখন মানুষ খুব ভালবাসে তখন খুব ভাল লাগে। ভাল কাজের পাশে সবাই অনুপ্রেরণা যোগায়। তবে সব সৃষ্টির পেছনে থাকে শিল্পীর দুঃখ ও বিরহ গাঁথা। তাই সবাই যেন দুঃখবোধকে খারাপ দিকে প্রবাহিত না করেন। নিজেরা যেন নিজেদের জীবন ধ্বংস করে না দেয়। ঈর্ষার বলিদান যেন হতে না হয় কাউকে।”

তিনি বলেন, “আমার কবিতায় আমি প্রেমের সাথে দ্রোহ ও প্রতিবাদের ভাষা ব্যবহার করেছি। যদিও আমি কোন রাজনৈতিক দলের সাথে ছিলাম না। দেশ আমাকে ভাবায়।” এ সময় কবি তাঁর নিজের একটি কবিতা “এখন যৌবন যার যুদ্ধে যাবার তার শ্রেষ্ঠ সময়” আবৃত্তি করে শোনান।
অনুষ্ঠানে আসা পেন্সিলের একজন সদস্য বলেন, গ্রুপটি আমাদের মানবিক বিকাশে খুব সহায়ক। অবসর সময়ে ফেসবুক মানেই পেন্সিল। আর এতদিন ফেসবুকে সবার সাথে পরিচয় ছিল। সামনা সামনি দেখা হওয়াতে আমাদের বন্ধুত্ব আরো দৃঢ় হবে।”

‘জীবনের যত রঙ’ স্লোগানে পাঁচদিনের উৎসব-আসর বসেছে বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় চিত্রশালা হল-৬ এ। পেন্সিল সদস্যদের আঁকা ও তোলা ছবি নিয়ে চলছে প্রদর্শনী।

প্রায় ৩০ হাজারের বেশি সদস্যের পরিবার নিয়ে পথচলা পেন্সিলের। সবাইকে নিয়ে শিল্প সাহিত্যের স্বাদ আস্বাদন করতে করতে আরো অনেক দূর যাওয়ার পরিকল্পনা পেন্সিল সদস্যদের। কালে চক্রে মননে মানসিকতায় মেল-বন্ধন খুঁজে পাওয়া কিছু মানুষের স্বপ্ন নিয়েই যে পথ চলছে পেন্সিল।

জীবনের যত রঙ নিয়ে পেন্সিলের প্রথম বর্ষপূর্তি

উৎসবে পেন্সিল পরিবারের সদস্যদের আলোকচিত্র ও চিত্রকলা প্রদর্শনী, সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের আঁকা ছবি প্রদর্শনীতে স্থান পেয়েছে। উদ্বােধনী আয়োজনে পেন্সিল সদস্যদের লেখা কবিতা ও আবৃত্তির অ্যালবাম ‘তবু কবিতায় বলে দিয়েছি’- এর মোড়ক উন্মােচন করা হয়েছে। এছাড়া পেন্সিল সদস্যদের প্রকাশিত বই নিয়ে বই মেলা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানও চলছে। প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর আয়োজন চলবে ১৬ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত।

জীবনের যত রঙ নিয়ে পেন্সিলের প্রথম বর্ষপূর্তি

বর্ষপূর্তি কমিটির আহবায়ক আসকার ইবনে ফিরোজ বলেন, “ধীরে ধীরে বড় হওয়া পেন্সিল নিয়ে আমরা পাড়ি দিতে চাই আরো অনেক পথ। সবার স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণ এটাই প্রমাণ করে, পেন্সিলরদের বন্ধন কত মজবুত। তরুন ও মেধাবি লেখকদের জন্য এই প্রয়াসকে স্বাগত জানিয়েছেন দেশ বিদেশের অনেক শুভানুধ্যায়ী।

তিনি বলেন, “আমাদের দেশের আনাচে কানাচে লুকিয়ে আছে শত শত প্রতিভা। যাদের প্রতিভার বিকাশ ঘটানোর কোন সুযোগ নেই। ‘পেন্সিল’ সবার প্রতিভার মূল্যায়ন করে তাদেরকে একটি মজবুত প্লাটফর্ম তৈরি করে দেয়ার লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছে।”
আসকার ইবনে ফিরোজ বলেন, “পেন্সিল ফাউন্ডেশন নামে আমরা একটি সংগঠন চালু করতে যাচ্ছি যাদের কাজ হবে প্রত্যেক বইমেলাতে প্রতিভাবান লেখকদের বই প্রকাশের সুযোগ করে দেয়া।” এছাড়া সমাজ উন্নয়নমূলক কাজে প্রত্যক্ষভাবে যুক্ত থাকবে ‘পেন্সিল’। মূল কথায় আমাদের দেশের তরুণদের বাংলা শিল্প সাহিত্যের প্রতি অনুরাগ সৃষ্টি করে আরো বেশি লিখতে অনুপ্রেরণা সৃষ্টি করবে ‘পেন্সিল ফাউন্ডেশন।”
প্রদর্শণীর ছবি বিক্রির পুরো অর্থ সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের জন্য ব্যয় করা হবে বলে জানান বর্ষপূর্তি কমিটির আহবায়ক আসকার ইবনে ফিরোজ।জীবনের যত রঙ নিয়ে পেন্সিলের প্রথম বর্ষপূর্তি
পেন্সিলের উদ্যোক্তা ডা. এস এম নিয়াজ মাওলা জানান, সুবিধাবঞ্চিত শিল্প সাহিত্য পিপাসু মানুষের উঠে দাঁড়ানোর প্রধান সোপান হবে ‘পেন্সিল’। সবাই মিলে দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে শিল্প সাহিত্য অনুরাগীদের সবার সামনে আনার প্রয়াসে তৈরি করা হয় ‘পেন্সিল’। ২০১৬ সালের ১২ সেপ্টেম্বর রাতে এর কার্যক্রম শুরু হয়।

এদিকে, বন্দরনগরীতে ১২ সেপ্টেম্বর রাত ১২টা ১ মিনিটে কেক কাটাসহ নানা আয়োজনে গ্রুপের সদস্যরা বর্ষপূর্তি উদযাপন করেন। অন্যরকম উচ্ছ্বাস আর প্রাণময়তায় মোড়া ছিলো ‘আঁরার চাটগা’র আয়োজনখানি। অনুভূতি জানাতে গিয়ে চট্টগ্রামের পেন্সিল সদস্য রেজওয়ানুল আলম বলেন, পেন্সিল একটা স্বপ্ন। বিপ্লবের নাম। এই বিপ্লব অসত্যের বিপক্ষে সত্যের। অসুন্দরের বিপক্ষে সুন্দরের। প্রথম বর্ষপূর্তিতে ঢাকার আয়োজনকে অভ্যুত্থান হিসেবে মন্তব্য করে তিনি বিপ্লব পূর্ণ মাত্রা পাওয়ার আশাবাদ জানান।

এসএম/ এন টি

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন:
symphony

অনুরূপ সংবাদ

উপরে