আপনি আছেন
প্রচ্ছদ > জাতীয় > গণজাগরণ মঞ্চের মিয়ানমার দূতাবাস ঘেরাও কর্মসূচিতে পুলিশি বাধা

গণজাগরণ মঞ্চের মিয়ানমার দূতাবাস ঘেরাও কর্মসূচিতে পুলিশি বাধা

গণজাগরণ মঞ্চের মিয়ানমার দূতাবাস ঘেরাও কর্মসূচিতে পুলিশি বাধা

প্রতিচ্ছবি প্রতিবেদক:

মিয়ানমারের রাখাইনে রোহিঙ্গাদের ওপর নির্যাতন বন্ধের দাবিতে গণজাগরণ মঞ্চের মিয়ানমার দূতাবাস ঘেরাও কর্মসূচি পুলিশের বাধা দিয়েছে। সোমবার বিকেল ৪টা ১৫মিনিটে শুলশান ২ নম্বর গোল চত্ত্বর থেকে মিয়ানমার দূতাবাস অভিমুখে রওনা হলে পুলিশ তাদেরকে বাধা দেয়।

এসময় গণজাগরণ মঞ্চের কর্মীরা পুলিশের সাথে ধস্তাধস্তির একপর্যায়ে সেখানেই সংক্ষিপ্ত বিক্ষোভ সমাবেশ করে। বিক্ষোভ শেষে গণজাগরণ মঞ্চের মুখপাত্র ড. ইমরান এইচ সরকারের নেতৃত্বে পাঁচ সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল স্বারকলিপি প্রদানের জন্য মিয়ানমার দূতাবাসে যায়।

সোমবার বিকেলে রাজধানীর গুলশানে মিয়ানমার দূতাবাস ঘেরাও কর্মসূচি থেকে  গণজাগরণ মঞ্চের মুখপাত্র ডা. ইমরান এইচ সরকার বলেন, দেশে দেশে বাণিজ্যিক সম্পর্ক গড়ে, ইয়াবা বিক্রি করে বিপুল অর্থ উপার্জন করেছে মিয়ানমার। তা দিয়ে অস্ত্রগোলাবারুদ ক্রয় করে মানুষ হত্যা করছে। কাজেই আমাদের প্রধান কাজ- মিয়ানমারের পণ্য বর্জন করা। সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়ে ইমরান বলেন, আপনারা মিয়ানমারের সঙ্গে বাণিজ্যিক-অর্থনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন করেন।

গণহত্যার বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে তিনি দেশের মানুষের প্রতি আহ্বান জানিয়ে বলেন, রোহিঙ্গারা মুসলিম, শুধু এই হিসেবে নয়, তারা মানুষ, মানুষকে হত্যা করা হচ্ছে, নির্যাতন করা হচ্ছে- এই মনে করে যার যার অবস্থান থেকে প্রতিবাদ জানান এই গণহত্যার।

মিয়ানমার থেকে চাল আমদানির প্রসঙ্গ উল্লেখ করে ইমরান সরকারের উদ্দেশে বলেন, চাল আমদানি বন্ধ করেন। মানুষের রক্তমাখা চাল দেশের মানুষ খাবে না, দেশে ঢুকতে দেবে না। মিয়ানমার থেকে চাল আমদানি বন্ধ করুন।

বাংলাদেশের প্রশংসা করে ইমরান বলেন, মানবতায় বাংলাদেশ বিশ্বের কাছে মাথা উঁচু করে দাঁড়াতে পেরেছে। বাংলাদেশ প্রমাণ করেছে- মানবতার ক্ষেত্রে বাংলাদেশ আপোষ করতে জানে না।

মিয়ানমারের কড়া সমালোচনা করে তিনি বলেন, আমাদের দাবি- তারা যেন তাদের দেশ থেকে বিতাড়িত রোহিঙ্গাদের দেশে ফিরিয়ে নেন এবং রোহিঙ্গাদের পূর্ণ নাগরিকের মর্যাদা প্রদান করে। অন্যাথায় আরও দাঁত ভাঙা জবাব দেবার জন্য দেশের মানুষ প্রস্তুত।

এ সমাবেশ শেষ করে সমাবেশস্থল ঘিরে রাখা ব্যরিকেড সরিয়ে মিয়ানমার দূতাবাস ঘেরাও যেতে চাইলে পুলিশ বাধা দেয় গণজাগরণ মঞ্চকে। এরপর ইমরান বলেন, গণজাগরণ মঞ্চ পূর্ব থেকেই আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর প্রতি শ্রদ্ধাশীল। পুলিশও যেন যার যার অবস্থান থেকে গণহত্যার বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ায়।

এএম/

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন:
symphony

অনুরূপ সংবাদ

উপরে