আপনি আছেন
প্রচ্ছদ > জাতীয় > দ্বিতীয় সাবমেরিন ক্যাবল ল্যান্ডিং স্টেশনের উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী

দ্বিতীয় সাবমেরিন ক্যাবল ল্যান্ডিং স্টেশনের উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী

দ্বিতীয় সাবমেরিন ক্যাবল ল্যান্ডিং স্টেশনের উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রীপ্রতিচ্ছবি প্রতিবেদক:

বহুল প্রতিক্ষিত কুয়াকাটায় অবস্থিত দ্বিতীয় সাবমেরিন ক্যাবল ল্যান্ডিং স্টেশনের উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আজ সকাল ১০টায় গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে  উদ্বোধন করেন তিনি।

এসময় সেখানে স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার খন্দকার মোশাররফ হোসেন এবং ডাক টেলিযোগ প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন প্রধানমন্ত্রীর মূখ্য সচিব ড. কামাল আবদুল নাসের চৌধুরী।

নতুন এই সাবমেরিন ক্যাবলে সংযুক্ত হওয়ায় বাংলাদেশ নতুন করে ১ হাজার ৫০০ গিগাবাইটের (জিবি) বেশি ব্যান্ডউইডথ পাবে। তবে আজ থেকে পেতে শুরু করবে ২০০ জিবিপিএস (গিগাবাইট পার সেকেন্ড) ব্যান্ডউইথ। এটির মেয়াদ ২০ থেকে ২৫ বছর। আর ট্রান্সমিশন চার্জ কম পড়ায় দক্ষিণাঞ্চলের বরিশাল, পটুয়াখালী, খুলনা ও ফরিদপুরের মানুষ কম খরচে ইন্টারনেট সেবা পাবেন।

বাংলাদেশ সাবমেরিন ক্যাবল টেলিযোগাযোগ বিভাগের আঞ্চলিক প্রকল্প পরিচালক পারভেজ মনন আশরাফ জানান, কক্সবাজারে প্রথম সাবমেরিন ক্যাবল ল্যান্ডিং স্টেশনের বিকল্প রুট হিসেবে কুয়াকাটার দ্বিতীয় সাবমেরিন ক্যাবল স্টেশনটি কাজ করবে। এই স্টেশনটি চালু হলে বাংলাদেশে ইন্টারনেটের ব্যবহার অনেক বৃদ্ধি পাবে। প্রতি ইউনিটে ব্যান্ডউইথের খরচও কমে যাবে। আর এতে ইন্টারনেট সেবা মানুষের দোর গোরায় পৌঁছে যাবে। দক্ষিণাঞ্চলের বরিশাল, পটুয়াখালী, ভোলা, খুলনা অঞ্চলে আইটিবিষয়ক সেবার প্রসার ঘটবে। দেশের চাহিদা মিটিয়ে ব্যান্ডউইথ রফতানির পরিকল্পনাও রয়েছে। ইতোমধ্যেই  ভারতের ত্রিপুরায় ব্যান্ডউইথ রফতানি হচ্ছে।

পটুয়াখালীর জেলা প্রশাসক ড. মাছুমুর রহমান বলেন, ‘সরকারের অন্যতম লক্ষ্য হলো বাংলাদেশকে ইন্টারনেট সেবায় স্বয়ংসম্পূর্ণ করা। পর্যাপ্ত পরিমাণ ব্যান্ডউইথ যাতে মানুষের মধ্যে সরবরাহ করা যায়, তাই দ্বিতীয় সাবমেরিন ক্যাবল স্টেশনটি নির্মাণ করা হয়েছে।’

এর আগে গত ২১ ফ্রেব্রুয়ারি তুরস্কের ইস্তাম্বুলে এই কনসোর্টিয়ামের উদ্বোধন হয়। গত ১৬ জানুয়ারি হাওয়াইয়ের হনুলুলুতে ২০ হাজার কিলোমিটার দীর্ঘ এবং ২৪ টেরাবাইট পার সেকেন্ড (টিবি/এস) গতির এই সি-মি-উই-৫ প্রকল্পের উদ্বোধন করা হয়। এই কনসোর্টিয়ামে যুক্ত রয়েছে বাংলাদেশসহ ১৭টি দেশ এবং এই ক্যাবলের মোট ল্যান্ডিং পয়েন্ট রয়েছে ১৮টি।

এন টি

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন:
symphony

অনুরূপ সংবাদ

উপরে