আপনি আছেন
প্রচ্ছদ > জাতীয় > সাধারণ রোগীর মত শারীরিক পরীক্ষা করালেন প্রধানমন্ত্রী

সাধারণ রোগীর মত শারীরিক পরীক্ষা করালেন প্রধানমন্ত্রী

প্রতিচ্ছবি প্রতিবেদক:

সকাল আটটা। গাজীপুরে শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব মেমোরিয়াল কেপিজে হাসপাতালে  রোগীদের মধ্যে দেখা গেল একটি পরিচিত মুখ। তিনিও টিকেট কেটে সব নিয়ম মেনে ডাক্তার দেখাতে এসেছেন। তিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এই হাসপাতালে নিয়মিত স্বাস্থ্যপরীক্ষার জন্য প্রধানমন্ত্রীর চতুর্থবারের মত আসা। এসময় তার সাথে  ছিলেন ছোট বোন শেখ রেহানা।

বঙ্গমাতা বিশেষায়িত হাসপাতালে সাধারণ রোগীর মত শারীরিক পরীক্ষা করালেন প্রধানমন্ত্রী

শনিবার সকালে প্রধানমন্ত্রী গাজীপুরে তার মায়ের নামে প্রতিষ্ঠিত এই হাসপাতালে পৌঁছান। অন্যান্যদের মত টিকেট কাটেন। খালি পেটে রক্ত পরীক্ষা করান। তারপর একে একে এক্সরে আর আল্ট্রাসনোগ্রাম করান দু বোন। তারপর এই হাসপাতালেই নাস্তা সেরে নেন।

সকাল সাড়ে ৯টার দিকে প্রধানমন্ত্রী হাসপাতালের কনসালটেন্টদের সঙ্গে বৈঠক করেন। চিকিৎসা সেবার সামগ্রিক খোঁজ খবর জানতে চান। হাসপাতালের  রোগীদের অবস্থা, ডাক্তারদের অবস্থা সবকিছু মিলিয়ে প্রধানমন্ত্রীকে একটি প্রেজেন্টেশন দেয়া হয়। ভবিষ্যতে এখানে একটি মেডিকেল কলেজ স্থাপনের আশা ব্যক্ত করেন প্রধানমন্ত্রী। সকলের সাথে কুশল বিনিময় শেষে চিকিৎসা ব্যবস্থা উন্নয়নে কি কি পদক্ষেপ নেয়া যায় তা নিয়ে আলোচনা হয়। সেসময় বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল ইউনিভার্সিটির মেডিসিন বিভাগের ডিন প্রফেসর এ বি এম আব্দুল্লাহ, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল ইউনিভার্সিটির সাবেক উপাচার্য প্রফেসর প্রাণ গোপাল দত্ত, সাবেক স্বাস্থ্য মহা পরিচালক ও চক্ষু বিশেষজ্ঞ প্রফেসর দীন মোহাম্মাদ নুরুল হক, শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব মেমোরিয়াল হাসপাতালের সিইও যাইতুন বিন্তে সুলাইমান, ডিরেক্টর ড. রাজীব হাসান ও বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক ড. মোহাম্মদ আরিফুর রহমান সহ আরো অনেকে।

সাধারণ রোগীর মত শারীরিক পরীক্ষা করালেন প্রধানমন্ত্রী

রাজধানীর অদূরে নির্মিত শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব মেমোরিয়াল কেপিজে হাসপাতালে নিয়মিত স্বাস্থ্য পরীক্ষা ও চিকিৎসা করান প্রধানমন্ত্রী। এটি মানুষকে দেশেই স্বাস্থ্যসেবা নিতে উৎসাহিত করবে বলে আশা করেন প্রধানমন্ত্রী। দেড় বছর আগে হাসপাতালটিতে চিকিৎসা নিতে গিয়ে বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা বলেছিলেন, “আমি যদি কখনও অসুস্থ হয়ে পড়ি তাহলে আপনারা আমাকে বিদেশে নেবেন না। আমি দেশের মাটিতেই চিকিৎসা নেব। এই হাসপাতালে চিকিৎসা নেব।”

শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব মেমোরিয়াল কেপিজে হাসপাতালের কার্ডিওলজিস্ট কন্সালটেন্ট ড. আরিফুর রহমান  জানান, প্রধানমন্ত্রীর এখানে আসা মানে, আমাদের জন্য অনুপ্রেরণা। ঢাকা কেন্দ্রিক চিন্তা ভাবনা থেকে বেরিয়ে এসে তিনি এখানে স্বাস্থ্য পরীক্ষা করাতে আসেন, সেটি অনেক আনন্দের। স্কিলড ডাক্তাররা সাধারণত ঢাকার বাইরে আসতে চান না। প্রধানমন্ত্রীর এমন সফর সবাইকে উৎসাহিত করবে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

১১ টার দিকে প্রধানমন্ত্রী হাসপাতাল ত্যাগ করেন। ২০১৩ সালের ১৮ নভেম্বর মালয়েশীয় প্রতিষ্ঠান কেপিজের সঙ্গে বঙ্গবন্ধু মেমোরিয়াল ট্রাস্টের যৌথ উদ্যোগে শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব মেমোরিয়াল কেপিজে হাসপাতালের যাত্রা শুরু হয়।

এম এম/ এন টি

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন:

অনুরূপ সংবাদ

উপরে