আপনি আছেন
প্রচ্ছদ > অপরাধ > ডাকাতদের অভয়ারণ্য ঢাকা-বরিশাল হাইওয়ে, পুলিশের রহস্যময় ভূমিকা

ডাকাতদের অভয়ারণ্য ঢাকা-বরিশাল হাইওয়ে, পুলিশের রহস্যময় ভূমিকা

ডাকাতদের অভয়ারণ্য ঢাকা-বরিশাল মহাসড়ক, হাইওয়ে পুলিশের রহস্যময় ভূমিকা

প্রতিচ্ছবি মাদারীপুর প্রতিনিধি :

বরিশাল বিভাগের ৬টি এবং গোপালগঞ্জ ও মাদারীপুর জেলাসহ দক্ষিণাঞ্চলের যাত্রী ও চালকদের কাছে এক আতঙ্কের নাম ঢাকা-বরিশাল মহাসড়ক। এই মহাসড়কের ফরিদপুরের ভাঙ্গা ও গোপালগঞ্জের মুকসুদপুর উপজেলার অন্তত ৭টি স্পটে প্রতিমাসে যাত্রীবাহী নৈশকোচসহ বিভিন্ন যানবাহনে ৩ থেকে ৪ বার গণডাকাতি হয়।ডাকাতদের অভয়ারণ্য ঢাকা-বরিশাল হাইওয়ে, পুলিশের রহস্যময় ভূমিকা

নিয়মিত মহাসড়কে টহল না থাকা ও হাইওয়ে পুলিশের রহস্যময় ভূমিকায় গণডাকাতি চলছে বলে দাবি নাগরিক সমাজের। হাইওয়ে পুলিশ বলছে, ডাকাতির খবর পাওয়া মাত্রই আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হয়।

ঢাকা বরিশাল মহাসড়কের ফরিদপুরের হাইওয়ে থানা থেকে পূর্ব সদরদি এলাকায় রাত বারোটা থেকে তিনটার মধ্যে মহাসড়কে গাছ কেটে ফেলে বাস মাইক্রোবাস ট্রাক থামিয়ে নগদ টাকাসহ মূল্যবান সামগ্রী নিয়ে যায় ডাকাতরা।

শুধু পূর্ব সদরদি এলাকা নয় এই এলাকার আরও বিভিন্ন এলাকায় প্রতি মাসে গাছ কেটে ফেলে নিয়ে থেকে চার বার গণ ডাকাতি হয়। যাত্রীদের চিৎকারে পাশের গ্রামের এগিয়ে আসলেও পুলিশের হয়রানির কারণে এখন আর কেউ এগিয়ে আসে না।

ডাকাতদের অভয়ারণ্য ঢাকা-বরিশাল হাইওয়ে, পুলিশের রহস্যময় ভূমিকা

ডাকাতির ঘটনায় পুলিশের নীরব ভূমিকা নিয়ে ক্ষুদ্ধ সচেতন নাগরিক কমিটির সদস্যরা। তবে ডাকাতি রোধে জেলা ও হাইওয়ে পুলিশের সমন্বয়ে নিয়মিত টহল জোরদার করা হয়েছে বলে দাবি হাইওয়ে পুলিশের।

গত দুই বছরে ঢাকা বরিশাল মহাসড়কে ৩০টির বেশি ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে।

এ আর

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন:
symphony

অনুরূপ সংবাদ

উপরে