আপনি আছেন
প্রচ্ছদ > অর্থ-বাণিজ্য > অতিরিক্ত মুল্য দিয়েও চামড়া সংকটে পড়েছে চট্রগ্রামের আড়ৎদাররা

অতিরিক্ত মুল্য দিয়েও চামড়া সংকটে পড়েছে চট্রগ্রামের আড়ৎদাররা

অতিরিক্ত মুল্য দিয়েও চামড়া সংকটে পড়েছে চট্রগ্রামের আড়ৎদাররা

প্রতিচ্ছবি চট্রগ্রাম প্রতিনিধি:

অতিরিক্ত মূল্য দিয়েও চাহিদা অনুযায়ী চামড়া সংগ্রহ করতে ব্যর্থ হয়েছে চট্টগ্রামের আড়ৎদাররা। একদিকে পশু জবাই কম এবং অন্যদিকে পাচার হওয়ায় চামড়া সংকটে পড়েছে আড়ৎদাররা।

চট্টগ্রামে কোরবানির পশুর চামড়া সংগ্রহের কাজ শেষ। এবার চলছে লবন দিয়ে প্রক্রিয়াজাত করার কাজ। কোরবানির কাঁচা চামড়া সংগ্রহের ক্ষেত্রে এবছর আড়ৎদাররা বড় ধরনের হোঁচট খেয়েছেন।

প্রতিবছর কোরবানির পর ২৪ ঘণ্টার মধ্যে পাঁচ লাখ থেকে সাড়ে পাঁচ লাখ চামড়া সংগ্রহ করতে পারলেও এবার এসেছে চার লাখের কাছাকাছি। কম চামড়া নিয়ে দুশ্চিন্তায় পড়েছেন আড়ৎদাররা।

এবারের কোরবানিতে চট্টগ্রামের সব জেলা উপজেলা থেকে কমপক্ষে সাড়ে পাঁচ লাখ চামড়া সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হলেও এখনও পর্যন্ত লক্ষ্যমাত্রার পৌঁছতে পারেনি তারা। টাকা হাতে নিয়ে চামড়ার অপেক্ষায় থাকলেও মিলছেনা কোন চামড়া।

 আড়ৎদাররা জানায়, ‘একদিকে পশু জবাই কম আর অন্যদিকে মৌসুমী ব্যবসায়ীদের হাত ধরেই বিদেশে পাঁচার হয়েছে চামড়া। তাই চামড়ার সংকটে পড়েছে আড়তদাররা।

তবে মৌসুমি ব্যবসায়ীদের কারনে ট্যানারি মালিকদের নির্ধারিত মূল্যের চেয়ে বেশি মূল্যে চামড়া সংগ্রহ করায় অনেকটা দুশ্চিন্তায় ভুগছেন আড়ৎদাররা। তবে ট্যানারি মালিকদের বেশি দামে চামড়া নেয়ার দাবি জানিয়েছেন কাঁচা চামড়া ব্যবসায়ীরা।

এদিকে চট্টগ্রামের ট্যানারি মালিকরা বলছেন সরকারি নির্ধারিত মূল্যের চেয়ে  বেশি দামে চামড়া না নেয়ার কথা।

অন্যদিকে মৌসুমি ব্যবসায়ীদের অভিযোগ চট্টগ্রামের চামড়ার বাজারে ট্যানারি মালিকপক্ষের সিন্ডিকেট সক্রিয় থাকায় কম দামে চামড়া বিক্রি করতে বাধ্য হয়েছে তারা।

জয় নয়ন / আর এইচ

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন:
symphony

অনুরূপ সংবাদ

উপরে