আপনি আছেন
প্রচ্ছদ > অপরাধ > নোয়াখালীতে আওয়ামী লীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যার চেষ্টা

নোয়াখালীতে আওয়ামী লীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যার চেষ্টা

নোয়াখালীতে আওয়ামী লীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যার চেষ্টা

প্রতিচ্ছবি নোয়াখালী প্রতিনিধি:

নোয়াখালী সদর উপজেলার নোয়ান্নই ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নুর নবী বাবুলকে (৫০) এলোপাতাড়ি কুপিয়ে হত্যার চেষ্টা করেছে দুবৃর্ত্তরা। একটি বিল্ডিংয়ের পাশে অজ্ঞান অবস্থায় তাকে ফেলে রেখে তার ব্যবহৃত মোটর সাইকেলটি নিয়ে পালিয়ে যায় আসামীরা।

গুরুতর অবস্থায় রোববার সকালে তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তার অবস্থা আশংকা জনক বলে জানিয়েছেন কর্তব্যরত চিকিৎসক।

শনিবার গভীর রাতে সদর উপজেলার ইসলামগঞ্জ বাজার থেকে শাহাদাতপুর গ্রামের ইসলামীয়া সড়কের কলিয়া বাড়ির সামনে এ হামলার ঘটনা ঘটে। আহত নুর নবী বাবুল শাহাদাতপুর গ্রামের মরহুম হাজী হোসেন আহম্মদের ছেলে।

স্থানীয় সুত্রে জানা যায়, নোয়ান্নই ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নুর নবী বাবুল প্রতিদিনের মত শনিবার দিবাগত গভীর রাতে স্থানীয় ইসলামগঞ্জ বাজার থেকে মোটরসাইকেল যোগে নিজ বাড়ি ফিরছিলেন। বাবুল শাহাদাতপুর গ্রামের ইসলামীয়া সড়কের কলিয়া বাড়ির সামনে পৌছাঁলে একদল দুবৃর্ত্ত তাঁর মোটরসাইলের গতিরোধ করে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে ও পিটিয়ে হত্যার চেষ্টা করে ।

এসময় বাবুলের শোর-চিৎকারে আশপাশের লোকজন এগিয়ে আসলে দুবৃর্ত্তরা তার ব্যবহৃত মোটরসাইকেলটি নিয়ে পালিয়ে যায়।

পরে স্থানীয়রা গুরত্বর আহত অবস্থায় বাবুলকে প্রথমে নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করেন। সেখানে অবস্থার অবনতি দেখে তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হয়। মাথায় কোপের আঘাতে বর্তমানে বাবুলের অবস্থা আশংকাজনক।

সদর উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি ও উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান এডভোকেট শিহাব উদ্দিন শাহীন বলেন, ‘আগামী নির্বাচনকে কেন্দ্র করে বিএনপি-জামায়াত সন্ত্রাসীরা আওয়ামী লীগের পরীক্ষিত ও ত্যাগী নেতাদের উপর হত্যার উদ্দেশ্যে হামলাসহ নানাভাবে ষড়যন্ত্র করছে। তারই ধারাবাহিকতায় ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক নুর নবী বাবুলকে পিটিয়ে ও কুপিয়ে হত্যার চেষ্টা কর হল।’

এদিকে নুর নবী বাবুলকে হত্যা চেষ্টার প্রতিবাদে রোববার (২৭ আগস্ট) বিকাল ৩ টায় উপজেলার ইসলামগঞ্জ বাজারে বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশ করেছে স্থানীয় এলাকাবাসী ও দলীয় নেতাকর্মীরা।

এ বিষয়ে সুধারাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আনোয়ার হোসেন ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেন বলেন, ‘গতকাল গভীর রাতে তার ওপর হামলার ঘটনা ঘটেছে।’

তিনি আরো জানান তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা নেয়া হয়েছে। এখন পর্যন্ত কোন মামলা হয়নি, তবে পরিবারের লোকজন ঢাকা থেকে আসলে মামলা হবে।

আসাদুজ্জামান চৌধুরী কাজল / এম এম

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন:
symphony

অনুরূপ সংবাদ

উপরে