আপনি আছেন
প্রচ্ছদ > বিনোদন-সংস্কৃতি > রাজলক্ষ্মী সম্পর্কে ‌‌‘ভুল ধারণা’ পরিষ্কার করলেন বাপ্পারাজ

রাজলক্ষ্মী সম্পর্কে ‌‌‘ভুল ধারণা’ পরিষ্কার করলেন বাপ্পারাজ

রাজলক্ষ্মী সম্পর্কে ‌‌‘ভুল ধারণা’ পরিষ্কার করলেন বাপ্পারাজ

প্রতিচ্ছবি বিনোদন ডেস্ক:

কৃতজ্ঞতা জানাতেই হাজির হয়েছিলেন বাপ্পারাজ। নায়করাজ রাজ্জাকের বড় ছেলে। এফডিসি আজ বাংলাদেশ চলচ্চিত্র পরিবার আয়োজিত স্মরণসভায় বাপ্পারাজ কথা বলতে গিয়ে বেশ কবারই বাষ্পরুদ্ধ হলেন। আবেগে কাঁদলেন। কখনো কখনো আবেগের সঙ্গে মিশে থাকল ক্ষোভও।

নিজেও একসময় বাংলা সিনেমার জনপ্রিয় নায়কদের একজন ছিলেন। সন্তান হিসেবে বাবা সম্পর্কে কিছু ভুল ধারণা আর সমালোচনার উত্তর দিলেন বাপ্পারাজ। বললেন, উত্তরায় রাজলক্ষ্মী কমপ্লেক্স নিয়ে প্রচলিত ভুল ধারণার কথা, ‘‌একটা ভুল ধারণা আছে যে, উনি সিনেমা হলের নাম করে মার্কেট করেছেন। অনুমতিটা সিনেমা হলের নাম করে নিয়েছেন। না, মার্কেটের কথা বলেই অনুমতি নেওয়া। মার্কেটটা ওখানে মার্কেট হিসেবেই তৈরি করা হয়েছিল। পরে আমরা সিনেমা হল করার চেষ্টা করেছিলাম, রাজউক থেকে অনুমতি দেওয়া হয়নি।’

এ ক্ষেত্রে মার্কেটটির নকশাও একটা বাধা ছিল বলে জানালেন বাপ্পারাজ, ‘ওই ভবনটায় অনেক পিলার ছিল। সেটা ভেঙে জায়গা বের করে সিনেমা হল করার কোনো উপায় ছিল না। করা হয়নি। পরে ওপরে সিনেমা হল করার চেষ্টা করেছিলাম, তখনো অনুমতি দেওয়া হয়নি। কিছুদিন আগেও ওখানে বিসিকের একটা অডিটোরিয়াম ছিল, ওটাও আমরা নেওয়ার চেষ্টা করেছিলাম সিনেমা হল করার জন্য। উত্তরার একটি স্কুলের পাশে হওয়া সেটাও করা যায়নি। এই হলো ঘটনা।’

বাপ্পারাজ বলেন, ‘এটা নিয়ে অনেকেরই ভুল ধারণা আছে, আমি পরিষ্কার করে দিলাম। রাজ্জাক সাহেব দুই নম্বরি করে মার্কেট বানাননি, রাজ্জাক সাহেব সৎ থেকে মার্কেট বানিয়েছেন। রাজ্জাক সাহেব যদি দুই নম্বরি করে বানাতেন, তাহলে উত্তরায় আরও চার-পাঁচটা মার্কেট থাকত। করেননি।’

সৎ থাকার কারণে নিজেদের বাড়ির একটা অংশ বিক্রি করে দিতে হয়েছিল জানিয়ে বাপ্পারাজ বলেন, ‌‘আমাদের এত বড় একটা বাড়ি ছিল, ব্যবসায় ক্ষতি করার পরে ব্যাংকের মাত্র চার কোটি টাকা ঋণ ছিল। লাখ লাখ, কোটি কোটি টাকা মানুষ মেরে দেয়, আবুল-করিম-গফুররা এমন করে, কোনো কথা ওঠে না কখনো। কিন্তু রাজ্জাক সাহেবের নামে আসবে, রাজ্জাক সাহেব চার কোটি টাকা মেরে দিয়েছেন, ব্যাংকে ডিফল্টার। আমরা আমাদের বাড়ি বিক্রি করে লোন শোধ করে দিয়েছি। আমরা অসৎ হলে মেরে দিতে পারতাম ওই টাকা। আরও বাড়ি করতে পারতাম, ডেভেলপার দিয়ে ফ্ল্যাট বানাতাম। এই ফ্ল্যাটগুলো কিন্তু আমাদের না, সেগুলো আমরা বিক্রি করে দিয়েছি। ওখানে আমাদের কোনো ফ্ল্যাট নেই।’

 

আই এম

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন:
symphony

অনুরূপ সংবাদ

উপরে