আপনি আছেন
প্রচ্ছদ > আইন-মানবাধিকার > পেছালো সাত খুন মামলার রায়

পেছালো সাত খুন মামলার রায়

7_murder20161130090102

প্রতিচ্ছবি প্রতিবেদক:

রায় ঘোষণার জন্য দিন ধার্য থাকলেও লোমহর্ষক ও বহুল আলোচিত নারায়ণগঞ্জের সাত খুন মামলার ডেথ রেফারেন্স ও আসামিদের আপিলের রায় ঘোষণা হয়নি আজ।

রায় ঘোষণার জন্য ২২ আগস্ট পরবর্তী দিন ধার্য করেছেন আদালত।

রোববার সকাল ১০টা ৩৫ মিনিটের দিকে আদালত বসেই বলেন, আজ আমরা রায় ঘোষণা করছি না। রায় ঘোষণার জন্য ২২ আগস্ট দিন ধার্য করেছি।

সাত খুন মামলায় মামলায় চলতি বছরের ১৬ জানুয়ারি নিম্ন আদালত রায় দেন। রায়ে র‍্যাবের সাবেক ১৬ কর্মকর্তা ও সদস্য এবং নারায়ণগঞ্জের সাবেক ওয়ার্ড কাউন্সিলর নূর হোসেন ও তাঁর অপরাধজগতের ৯ সহযোগীসহ মোট ২৬ জনের মৃত্যুদণ্ডের আদেশ দেন আদালত। এ ছাড়া র‍্যাবের আরও নয়জন সাবেক কর্মীকে বিভিন্ন মেয়াদে সশ্রম কারাদণ্ড দেওয়া হয়।

র‍্যাবের যেসব কর্মকর্তা ও সদস্যকে মৃত্যুদণ্ডসহ বিভিন্ন মেয়াদে সাজা দেওয়া হয়েছে, তাঁরা সেনাবাহিনী, নৌবাহিনী, বিজিবি, পুলিশ ও আনসার বাহিনী থেকে প্রেষণে র‍্যাবে এসেছিলেন। অপরাধ সংঘটনের সময় তাঁরা সবাই র‍্যাব-১১-তে কর্মরত ছিলেন। সাত খুনের মামলার পর তাঁদের সবাইকে নিজ নিজ বাহিনী থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়।

দণ্ডাদেশের রায়ের বিরুদ্ধে ৩৫ আসামির মধ্যে ২৮ জন আপিল করেন। অপর সাতজন পলাতক রয়েছেন।

নিম্ন আদালতের রায়ের পর ডেথ রেফারেন্স অনুমোদনের জন্য হাইকোর্টে আসে। গত ২২ মে হাইকোর্টে শুনানি শুরু হয়। ২৬ জুলাই শুনানি শেষ হয়।

২০১৪ সালের ২৭ এপ্রিল ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ লিংক রোড থেকে অপহৃত হন নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের কাউন্সিলর নজরুল ইসলাম, আইনজীবী চন্দন সরকারসহ সাতজন। তিন দিন পর ৩০ এপ্রিল শীতলক্ষ্যা নদীতে একে একে ভেসে ওঠে ছয়টি লাশ, পরদিন মেলে আরেকটি লাশ। সাত খুনের ঘটনায় দুটি মামলা হয়। দুই মামলায় নারায়ণগঞ্জ জেলা ও দায়রা জজ গত ১৬ জানুয়ারি রায় দেন।

রায়ে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন সাবেক কাউন্সিলর ও আওয়ামী লীগের নেতা নূর হোসেন, র‍্যাব-১১-এর সাবেক অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল (অব.) তারেক সাঈদ মোহাম্মদ, সাবেক দুই কোম্পানি কমান্ডার মেজর (অব.) আরিফ হোসেন, লে. কমান্ডার (চাকরিচ্যুত) এম মাসুদ রানা, হাবিলদার মো. এমদাদুল হক, এ বি মো. আরিফ হোসেন, ল্যান্স নায়েক হিরা মিয়া, ল্যান্স নায়েক বেলাল হোসেন, সিপাহি আবু তৈয়ব আলী, কনস্টেবল মো. শিহাব উদ্দিন, এসআই পূর্ণেন্দু বালা, সৈনিক আসাদুজ্জামান নুর, সৈনিক আবদুল আলিম, সৈনিক মহিউদ্দিন মুনশি, সৈনিক আল আমিন, সৈনিক তাজুল ইসলাম, সার্জেন্ট এনামুল কবির, নূর হোসেনের সহযোগী আলী মোহাম্মদ, মিজানুর রহমান, রহম আলী, আবুল বাশার, মোর্তুজা জামান, সেলিম, সানাউল্লাহ, শাহজাহান ও জামালউদ্দিন।

রাষ্ট্রপক্ষ জানায়, মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্তদের মধ্যে পাঁচজন পলাতক। তাঁরা হলেন সৈনিক মহিউদ্দিন মুনশি, সৈনিক আল আমিন, সৈনিক তাজুল ইসলাম, নূর হোসেনের সহকারী সানাউল্লাহ ও শাহজাহান।

১০ বছর সশ্রম কারাদণ্ডসহ বিভিন্ন মেয়াদে দণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন ল্যান্স করপোরাল রুহুল আমিন, এএসআই বজলুর রহমান, সৈনিক নুরুজ্জামান, কনস্টেবল বাবুল হাসান, এএসআই আবুল কালাম আজাদ, কনস্টেবল হাবিবুর রহমান, হাবিলদার নাসির উদ্দিন, করপোরাল মোখলেছুর রহমান ও এএসআই কামাল হোসেন। শেষ দুজন পলাতক।

বিচারিক আদালতের রায় ও নথি গত ২২ জানুয়ারি হাইকোর্টে পৌঁছায়, তা ডেথ রেফারেন্স হিসেবে নথিভুক্ত হয়। পরে প্রধান বিচারপতির নির্দেশে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে দুই মামলার পেপারবুক প্রস্তুত করে হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখা। শুনানির জন্য প্রধান বিচারপতি ওই বেঞ্চ নির্ধারণ করে দেন, পরে শুনানি শুরু হয়।

এম এম

সাত খুন মামলার ডেথ রেফারেন্স ও আপিলের রায় আজ

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন:

অনুরূপ সংবাদ

উপরে