আপনি আছেন
প্রচ্ছদ > ক্যাম্পাস > রাবিতে শিক্ষকদের অবস্থান ধর্মঘট, ক্লাস-পরীক্ষা বর্জন

রাবিতে শিক্ষকদের অবস্থান ধর্মঘট, ক্লাস-পরীক্ষা বর্জন

রাবিতে শিক্ষকদের অবস্থান ধর্মঘট, ক্লাস-পরীক্ষা বর্জন

প্রতিচ্ছবি প্রতিবেদক :

সভাপতির কক্ষে বঙ্গবন্ধুর ছবি না রাখা ও দায়িত্বে অবহেলাসহ বিভিন্ন অভিযোগে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের সভাপতি অধ্যাপক ড. নাসিমা জামানের অপসারণ দাবিতে বিভাগের ক্লাস-পরীক্ষা বর্জন ও অবস্থান ধর্মঘট করছেন বিভাগের ১১ জন শিক্ষক।

সভাপতির অপসারণের দাবি না মেনে নেওয়া পর্যন্ত আজ থেকে প্রতিদিন সকাল ৯টা থেকে ১২টা পর্যন্ত অবস্থান ধর্মঘট ও ক্লাস-পরীক্ষা বর্জন কর্মসূচি চলবে বলে জানান আন্দোলকারী শিক্ষক অধ্যাপক এম. আমিনুর রহমান।

তিনি জানান, সভাপতি ও একজন শিক্ষিকা শিক্ষকদের সম্পর্কে মিথ্যা ও ভিত্তিহীন অভিযোগ করে অপপ্রচার চালিয়ে যাচ্ছেন। এতে বিভাগের শিক্ষকদের মানহানি হচ্ছে ও বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি হচ্ছে। আমাদের আর কোনো উপায় নেই, তাই আজ থেকে আন্দোলনে বসেছি। সভাপতির অপসারণ না হওয়া পর্যন্ত আমরা ক্লাস-পরীক্ষা বর্জনসহ অবস্থান কর্মসূচি চালিয়ে যাব।

তবে ক্লাস-পরীক্ষা বর্জনে শিক্ষার্থীদের যে অপূরণীয় ক্ষতি হবে এমন বিষয় উল্লেখ করে তিনি বলেন, আমরা এখন যে ক্লাস-পরীক্ষা বর্জন করছি তা পরে যে কোন মূল্যে পুষিয়ে দেওয়া হবে। তার জন্য প্রয়োজনে আমরা ছুটির দিনে ক্লাস-পরীক্ষা নেব।

গত ২ আগস্ট একই অভিযোগে সভাপতির প্রতি অনাস্থা জানিয়ে উপাচার্য বরাবর লিখিত অভিযোগ দেন ওই ১১ জন শিক্ষক। এর আগে গত ৩১ জুলাই ওই ১১ জন শিক্ষকের বিরুদ্ধে অর্থ আত্মসাৎ ও অসদাচারণের অভিযোগ করে উপাচার্যের কাছে লিখিত অভিযোগ দেন উক্ত বিভাগের সভাপতি অধ্যাপক নাসিমা জামান।

বিভাগের আরেক শিক্ষিকা আন্দোলনকারী ১১ জন শিক্ষকের একজনের বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগ তোলেন গত ৩ আগস্ট। পরে গত শুক্রবার বিভাগের ১৩ জন শিক্ষকের মধ্যে ওই ১১ জন শিক্ষক সংবাদ সম্মেলন করে বিভাগের সভাপতি ও শিক্ষিকার করা অভিযোগ মিথ্যা ও ভিত্তিহীন বলে দাবি করেন।

এর আগে গত ৩১ জুলাই সোমবার বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মোছা. রুখসানা পারভীনের বিরুদ্ধে শ্রেণিকক্ষে বিভাগের শিক্ষকদের সাথে আপত্তিকর আচরণের অভিযোগ এনে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে লিখিত অভিযোগ দেয় ওই ১১ শিক্ষক। ওইদিন বিকেলে অভিযুক্ত মোছা. রুখসানা পারভীনও তার বিরুদ্ধে বিভাগের কয়েকজন শিক্ষক ষড়যন্ত্র করছেন এই মর্মে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন বরাবর পাল্টা অভিযোগ দেন।

শিক্ষকদের এমন পাল্টাপাল্টি অভিযোগে বিভাগের শিক্ষার্থীদের মধ্যে ব্যাপক নেতিবাচক প্রভাব পড়ছে বলে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য অধ্যাপক আনন্দ কুমার সাহা গত বৃহস্পতিবার জানিয়েছিলেন, রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের এই সংকট নিয়ে রোববার বিশ্ববিদ্যালয়ে এই বিষয় নিয়ে বৈঠক হতে পারে।

এফ এইচ/এ আর

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন:
symphony

অনুরূপ সংবাদ

উপরে