আপনি আছেন
প্রচ্ছদ > খুলনা > টাকার অভাবে বন্ধ মুক্তিযোদ্ধার সন্তানের চিকিৎসা

টাকার অভাবে বন্ধ মুক্তিযোদ্ধার সন্তানের চিকিৎসা

টাকার অভাবে বন্ধ মুক্তিযোদ্ধার সন্তানের চিকিৎসা

প্রতিচ্ছবি মাগুরা প্রতিনিধি :

মাত্র ২৬ বছর বয়সে ধীরে-ধীরে মৃত্যুর দিকে এগিয়ে যাচ্ছেন ব্লাড ক্যান্সারে আক্রান্ত মাগুরার পিকুল শেখ। তার মুক্তিযোদ্ধা বৃদ্ধ পিতা গোলাম রসুল ভিটে বাড়ি ছাড়া সর্বস্ব খুইয়েছেন সন্তানের চিকিৎসার জন্য।

ভ্যান চালিয়ে সংসার চালোনোর পাশাপাশি ক্যান্সারে আক্রান্ত ছেলের চিকিৎসার করাতে গিয়ে এখন তিনি সর্বশান্ত। এবস্থায় প্রিয় সন্তানের জীবন বাঁচাতে চিকিৎসার জন্য সরকার ও সমাজের বৃত্তবানদের কাছে সাহায্য কামনা করেছেন তিনি।

মাগুরার শালিখা উপজেলার সদর আড়পাড়া গ্রামের বাসিন্দা মুক্তিযোদ্ধা গোলাম রসুল জানান, তার ৪ ছেলে। বড় ছেলে আগেই ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছে। ৬ মাস আগে সেজ ছেলে পিকুলের ব্লাড ক্যান্সার ধরা পড়েছে। মুক্তিযোদ্ধা ভাতা আর ভ্যান চালিয়ে উর্পাজিত অর্থ দিয়ে সংসারের ১১ সদস্য ভরণপোষণ ও সন্তানের চিকিৎসা করতে না পেরে তিনি ভিটে বাড়ি ছাড়া সহায় সম্বল সব খুইয়ে পথে বসেছেন।

এখন প্রতি সপ্তাহে যশোর নিয়ে ক্যান্সার আক্রান্ত ছেলের শরীরে রক্ত দিতে ও প্রয়োজনীয় ওষুধ কিনতে ৮ থেকে ১০ হাজার টাকা খরচ হচ্ছে। প্রতি মাসে ৪০ থেকে ৫০ হাজার টাকার এ বিশাল ব্যায় তার পক্ষে আর বহন করা সম্ভব হচ্ছে না।

অর্থভাবে চিকিৎসা বন্ধ হয়ে যাওয়ায় এখন পিকুলের ফুসফুস ও লিভারেও ক্যান্সারের ভাইরাস ছড়িয়ে পড়েছে। এবস্থায় তিনি সন্তানের চিকিৎসার জন্য সরকার ও দেশবাসীর সাহায্য কামনা করেছেন।

পিকুলের বোন জানান, তার ভ্যান চালক দরিদ্র পিতার পক্ষে ক্যান্সারের আক্রান্ত ভাইয়ের চিকিৎসা করানোর সামর্থ নেই। বিগত ছয় মাস তার চিকিৎসা করাতে গিয়ে তিনি সর্বশান্ত হয়েছেন। এখন তার পক্ষে পরিবারের সদস্যদের মুখে দু’বেলা দুই মুঠো খাবার জোগনো অসম্ভব হয়ে পড়েছে। যে কারনে ক্যান্সারে আক্রান্ত ভাই ও তার স্ত্রী-কন্যাকে তার বাড়িতে এনে রেখেছেন। তিনিও ভাইয়ের জীবন বাঁচাতে সরকার ও বৃত্তবানদের কাছে চিকিৎসা সাহায়তা কামনা করলেন।

মাগুরা জেলা পরিষদের নারী সদস্য নিভা রানী বিশ্বাস বলেন, বীর মুক্তিযোদ্ধা হয়েও গোলমান রসুল ১১ সদস্য বিশাল সংসারের ব্যায় নির্বাহ করতে ভ্যান চালানোর পেশা বেছে নিয়েছেন। আগে ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে এক ছেলে মারা গেছে। এখন আরেক সন্তান ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে ধীরে-ধীরে মৃত্যুর দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। দরিদ্র গোলাম রসুলের সামর্থ নেই সন্তানের ক্যান্সারের চিকিৎসা করানোর মত।

নিভা রানী দেশের সকল মানুষের কাছে আহবান জানিয়েছেন মুক্তিযোদ্ধার সন্তান পিকুলের ক্যান্সার চিকিৎসার জন্য সাধ্যনুযায়ী সাহায্যর হাত বাড়াতে।

জেলা সমাজ সেবা অধিপ্তরের উপ-পরিচালক মহেনুল হক বলেন, মুক্তিযোদ্ধা গোলাম রসুলের সন্তানের ক্যান্সার চিকিৎসার তিনি আর্থিক সহায়তার আবেদন করেছেন। তারা উর্ধ্বতন মহলে এ বিষয়ে সুপারিশ পাঠিয়েছেন। তবে সমাজ সেবা থেকে তিনি যে সহায়তা পাবেন, তা প্রয়োজনের তুলনায় সামান্য।

অয়ন রায়/এ আর

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন:

অনুরূপ সংবাদ

উপরে