আপনি আছেন
প্রচ্ছদ > বিজ্ঞান প্রযুক্তি > স্ট্যাটাসে চাকরি গেলো গ্রামীণফোন কর্মকর্তার

স্ট্যাটাসে চাকরি গেলো গ্রামীণফোন কর্মকর্তার

grameen-phone

প্রতিচ্ছবি প্রতিবেদক:

ফেসবুক স্ট্যাটাসে দুর্নীতির বিরুদ্ধে কবিতা এবং বাংলা নববর্ষকে নিয়ে পোস্ট দেওয়ায় প্রযুক্তি ও কৌশলী বিভাগের সিনিয়র সিস্টেম ইঞ্জিনিয়ার মোহাম্মদ কামরুজ্জামানকে চাকরিচ্যুত করেছে গ্রামীনফোন। গত ১৮ জুলাই চূড়ান্ত বরখাস্তের চিঠি দেয় দেশের অন্যতম মোবাইল অপারেটর সেবাদাতা প্রতিষ্ঠানটি।

প্রধান মানবসম্পদ কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) ইয়াসির মাহমুদ খান স্বাক্ষরিত ওই চিঠিতে কামরুজ্জামানের বিরুদ্ধে ফেসবুকে কোম্পানির নির্বাহী পরিচালকদের ও ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারদের নামে মিথ্যা অপপ্রচারের ও ছবি কাটাছেঁড়ার অভিযোগ আনা হয়।

ইঞ্জিনিয়ার কামরুজ্জামানের দাবি, মুক্তিযুদ্ধবিরোধী চক্র ও যুদ্ধাপরাধীদের বিরুদ্ধে সোচ্চার থাকায় কোম্পানিটির জামায়াত ঘনিষ্ঠরা ষড়যন্ত্রমূলকভাবে তাকে চাকরিচ্যুত করেছে। তিনি ১৪ এপ্রিল নববর্ষকে কেন্দ্র করে একটি ও ২৪ এপ্রিল একটি ইংরেজি কবিতা ফেইসবুকে পোস্ট করেছিলেন।

চাকুরিচ্যুতির চিঠিতে ২৪ এপ্রিলের পোস্টকে মানহানিকর বলে উল্লেখ করেছে গ্রামীণফোন।

এ ঘটনা জানাজানি হওয়ার পর গ্রামীণফোনের (জিপি) অনেক কর্মী ফেইসবুক ব্যবহার নিয়ে অস্বস্তিতে পড়েছেন। এ ঘটনায় অনেকে অসন্তোষও প্রকাশ করেন। একান্তজনরা নিজেদের মধ্যে বিষয়টি নিয়ে কথাবার্তা চালালেও প্রকাশ্যে সবাই নীরব থাকছেন।

প্রতিষ্ঠানটির এক ঊধ্বর্তন কর্মকর্তা জানায়, ফেসবুক স্ট্যাটাসকে কেন্দ্র করে চাকরিচ্যুতির মতো পদক্ষেপ নেয়া যায় না। এছাড়া চাকরিচ্যুতের নোটিশে স্বাধীনতাবিরোধীদের নিয়ে ২০১৫ সালে করা ফেসবুক কমেন্টসের বিষয়টিও রেফারেন্স হিসেবে আনা উদ্দেশ্যমূলক কিনা-তা ভাবনার বিষয়।

তবে কামরুজ্জামানের দাবি, তাকে ‘অন্যায় ও ষড়যন্ত্রমূলকভাবে’ চাকরিচ্যুত করা হয়েছে। তিনি এ বিষয়ে আইনগত ব্যবস্থা নেবেন। তার অভিযোগ, চূড়ান্ত শুনানিতে তার দুজন প্রতিনিধির মতামতকেও উপেক্ষা করেছে গ্রামীণফোন।

চাকরিচ্যুতির চিঠিতে বলা হয়, আগেও আপনার বিরুদ্ধে গ্রামীণফোন ও এর কর্মীদের, বিশেষত সহকর্মীর বিরুদ্ধে ফেসবুকে অপপ্রচারের অভিযোগ পাওয়া গেছে। বর্ণিত অভিযোগের প্রেক্ষিতে আপনাকে বিগত ৭ জুন ২০১৫ ও ৭ আগস্ট ২০১৬ পৃথক দুটি কারণ দর্শানোর নোটিশ করা হয়েছিল।

চিঠিতে উল্লেখ করা হয়েছে, বিশ্বব্যাপি টেলিনরের ১৩ দেশের সকল কর্মকর্তা-কর্মচারীদের যোগাযোগের মাধ্যম ফেসবুক ওয়ালে কোম্পানির জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তাদের নামে মিথ্যা অপপ্রচার চালিয়ে গুরুতর অসদাচরণ করেছেন। এ ছাড়া নিয়মিতভাবে আপনার পোস্টে ছবি কাটাছেঁড়া করে এর সঙ্গে মিথ্যা তথ্য দিয়ে নির্বাহী পরিচালক ও অন্যান্য জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তাদের মানহানির চেষ্টা করছেন।

গ্রামীণফোন এমপ্লয়িজ ইউনিয়ন বা জিপিইইউর (প্রস্তাবিত) সভাপতি ফজলুল হক বলেন, ফেসবুকে স্ট্যাটাসের কারণে চাকরিচ্যুতি হতে পারে না। ইউনিয়ন তার সদস্যদের বিরুদ্ধে এ অন্যায়ের প্রতিবাদ করছে। সামনে আরও কঠোর কর্মসূচি দেয়া হবে।

এ বিষয়ে বিস্তারিত জানতে গ্রামীণফোনের জনসংযোগ বিভাগের ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার মো. হাসানের সাথে মুঠোফোনে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করেও তাকে পাওয়া যায়নি।

এ এস/এ আর

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন:
symphony

অনুরূপ সংবাদ

উপরে