আপনি আছেন
প্রচ্ছদ > চট্টগ্রাম > চট্টগ্রামের দুঃখ জলাবদ্ধতা: মহাপরিকল্পনা বাস্তবায়নের চেষ্টায় মেয়র

চট্টগ্রামের দুঃখ জলাবদ্ধতা: মহাপরিকল্পনা বাস্তবায়নের চেষ্টায় মেয়র

capture

নয়ন বড়ুয়া জয় প্রতিচ্ছবি চট্টগ্রাম প্রতিনিধি:

কিছুক্ষণের বৃষ্টি সেই সাথে জোয়ারের পানিতেই সৃষ্টি হচ্ছে চট্টগ্রামের জলাবদ্ধতা। কিছুতেই যেন মুক্তি মিলছে না। জলাবদ্ধতা যেন চট্টগ্রামের দুঃখ।

গত ক’দিনের টানা বৃষ্টিতে ও জোয়ারের পানিতে তলিয়ে যায় আগ্রাবাদ, চকবাজার, হালিশহরসহ নগরীর বেশ কিছু সড়ক। বাসাবাড়ি ছাড়াও পানি প্রবেশ করে বিভিন্ন অফিস ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে।

বৃষ্টির মৌসুমে ভোগান্তির যেন শেষ নেই। অফিস করতে রাজপথে নৌকাও নামিয়েছে কিছু কিছু অফিস। জোয়ারের পানি ঢুকে পড়ায় দিনের একটা বড় অংশ পানির মধ্যেই থাকতে হয় অনেক মানুষকে। পানির ভিতর দিয়ে আধাভেজা হয়ে অনেককে যেতে হয় কর্মস্থলে।

দুর্ভোগে আছেন ব্যবসায়ীরা। ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা যেমন ভোগান্তি পোহাচ্ছেন আবার পাইকারি ব্যবসায়ীদেরও দুঃখের শেষ নেই। দোকানের ভিতর পানি থাকায় ব্যবসা লাটে উঠতে যাচ্ছে খুচরা ব্যবসায়ীদের। আর চাক্তাই খাতুনগঞ্জে পানি ঢুকে ভিজে গেছে অনেক মালামাল। ক্ষতির মুখে পড়েছেন পাইকারি ব্যবসায়ীরা।

এ অবস্থা থেকে মুক্তি চায় বন্দরনগরীর মানুষ। তারা বলছেন, এভাবে চলতে পারে না। সিটি করপোরেশন ও চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষকে কিছু একটা করতেই হবে।

মহেশখালের বাঁধ খুলে দেয়ার পরও নগরীর হালিশহর আগ্রাবাদে প্রবেশ করছে জোয়ারের পানি। দীর্ঘ দিনের এ সমস্যা সমাধানে সিটি কর্পোরেশনের পাশাপাশি সংশ্লিষ্ট আরো বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান এগিয়ে আসলে জলাবদ্ধতা থেকে মুক্তি মিলবে ।

capture%e0%a7%a8%e0%a7%a8

নগর পরিকল্পনাবিদ দেলোয়ার হোসেন মজুমদার বলেন, ‘এরিটেনশন প্লান্ট, টাইটেল রেগুলেটর, নেভিগেশন গেইট এবং নতুন খাল খনন করতে হবে। এছাড়া খালের মধ্য দিয়ে যেসব ইউটেলেটরি লাইনগুলো গেছে যেগুলো প্রতিবন্ধকতা তৈরী করে এবং খালের পানি প্রবাহ বন্ধ করে দেয় সেগুলো সরাতে হবে। এ বিষয়গুলো নিয়ে আমরা প্রায় ১৫-২০টা প্রস্তাবনা দিয়েছিলেম, এগুলো যদি বাস্তবায়ন হয় তবে চট্টগ্রামের মানুষ এর সুফল পাবে।

আর সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিন বলছেন, ‘জলাবদ্ধতা দূর করতে আগামী দুই তিন মাসের মধ্যে একনেকে মহাপরিকল্পনা অনুমোদন হবার ব্যাপারে আমরা আশাবাদি। অনুমোদন হয়ে গেলে এই ডিসেম্বরের মধ্যে যাতে কাজ শুরু করতে পারি সে ব্যবস্থা করব। কারণ এটাতো একটা মেগা প্রজেক্ট যা বাস্তবায়ন সময় সাপেক্ষ বিষয়।’

58a9e927a50e81b844190bffb38e5861-1

উন্নয়ন পরিকল্পনা কেমন হবে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘শহরের মধ্য দিয়ে প্রায় ৩৪ টি খাল প্রবাহিত হয়েছে এগুলোর প্রত্যেকটির মুথে রেগুলেটরের সঙ্গে পাম্প হাউস বসানো হবে। এতে পানি প্রবাহ বেশি হলে গেইট বন্ধ করে দেয়া যাবে। আবার প্রয়োজনে পাম্প দিয়ে পানি সরিয়ে ফেলা যাবে। প্রকল্প বাস্তবায়িত হলে নগরবাসী একটি দীর্ঘমেয়াদি উপকার পাবে।’

নয়ন বড়ুয়া জয় / ডি ডি আর

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন:

অনুরূপ সংবাদ

উপরে