আপনি আছেন
প্রচ্ছদ > জাতীয় > এমন সিনেমা নির্মাণ করুন, যা বিশ্বব্যাপী প্রশংসিত হয় : প্রধানমন্ত্রী

এমন সিনেমা নির্মাণ করুন, যা বিশ্বব্যাপী প্রশংসিত হয় : প্রধানমন্ত্রী

এমন সিনেমা নির্মাণ করুন, যা বিশ্বব্যাপী প্রশংসিত হয় : প্রধানমন্ত্রী

প্রতিচ্ছবি প্রতিবেদক :

চলচ্চিত্র নির্মাতাদের উদ্দেশ্য করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘আপনারা এমন চলচ্চিত্র নির্মাণ করুন যা বিশ্বব্যাপী প্রশংসা লাভ করে। আমাদের জন্য জাতীয় ও আন্তর্জাতিকভাবে সুনাম বয়ে আনতে পারে।’

সোমবার বিকেলে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ২০১৫ প্রদান অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন তিনি। বাংলা চলচ্চিত্রে দেশের ঐতিহ্য, ইতিহাস ও সংস্কৃতি ধারণ করতে নির্মাতাদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু। অনুষ্ঠানে জাতীয় সংসদের তথ্য মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সভাপতি এ কে এম রহমতউল্লা সম্মানিত অতিথি হিসেবে এবং তথ্যসচিব মরতুজা আহমদ স্বাগত বক্তব্য রাখেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা চাই আমাদের যারা বাংলাদেশে চলচ্চিত্র নির্মাণ করেন তারা আরও উন্নতমানের সিনেমা নির্মাণ করবেন, যা আমাদের ঐতিহ্য, ইতিহাস ও সংস্কৃতি-কৃষ্টি সব কিছু ধারণ করতে পারে। দেশের মানুষ এবং আন্তর্জাতিকভাবে যেন আরও সুনাম অর্জন করতে পারে সেদিকে আরও বিশেষভাবে নজর দিতে হবে।

এছাড়া আজীবন সম্মাননা পুরষ্কার পেয়ে অনুভূতি ব্যক্ত করেন এক সময়ের জনপ্রিয় ও কিংবদন্তী অভিনেত্রী শাবানা। তিনি বলেন, ‘আমাদের দেশে প্রেক্ষাগৃহগুলোতে এখনো ডিজিটালাইজেশনের নামে সাধারণ এইচডি প্রযুক্তি ব্যবহার করা হচ্ছে। যা এ দেশের সিনেমাপ্রেমীদের জিম্মি করে রেখেছে।’ বক্তব্যে তিনি চলচ্চিত্রাঙ্গণের বিভিন্ন সমস্যা সমাধানে প্রধানমন্ত্রীর শেখ হাসিনার হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

তথ্য মন্ত্রণালয় গত ১৯ মে ২০১৫ সালের চলচ্চিত্র শিল্পে ২৫টি ক্যাটাগরিতে অসামান্য অবদানের জন্য ৩১ জনের নাম ঘোষণা করে।

জাতীয় চলচ্চিত্র পুরষ্কার- ২০১৫ প্রদান অনুষ্ঠানে আজীবন সম্মাননা পেয়েছেন এক সময়ের সাড়া জাগানো অভিনেত্রী চিত্রনায়িকা শাবানা ও সঙ্গীতজ্ঞ ফেরদৌসি রহমান। যুগ্মভাবে শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র নির্বাচিত হয়েছে ‘বাপজানের বায়োস্কাপ’ ও ‘অনিল বাগচীর একদিন’। শ্রেষ্ঠ প্রামাণ্য চলচ্চিত্রের পুরষ্কার লাভ করেছে  ‘একাত্তরের গণহত্যা ও বধ্যভূমি’।

যুগ্মভাবে শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র পরিচালকের পুরষ্কার পেয়েছেন মো. রিয়াজুল মওলা রিজু এবং মোরশেদুল ইসলাম, প্রধান চরিত্রে শাকিব খান ও মাহফুজ আহমেদ যুগ্মভাবে শ্রেষ্ঠ অভিনেতা ও জয়া আহসান শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রীর পুরস্কার লাভ করেছেন।

এছাড়া পার্শ্ব চরিত্রে শ্রেষ্ঠ অভিনেতা নির্বাচিত হয়েছেন গাজী রাকায়েত ও শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রী তমা মির্জা।  খল চরিত্রে শ্রেষ্ঠ অভিনেতা ইরেশ যাকের ও  শ্রেষ্ঠ শিশুশিল্পীর পুরস্কার পেয়েছেন যারা যারিব। শিশুশিল্পী শাখায় বিশেষ পুরস্কার দেয়া হয়েছে প্রমিয়া রহমানকে।

শ্রেষ্ঠ সঙ্গীত পরিচালকের পুরষ্কার পেয়েছেন সানী জুবায়ের, শ্রেষ্ঠ গায়ক নির্বাচিত হয়েছেন যুগ্মভাবে সুবীর নন্দী ও এস আই টুটুল, শ্রেষ্ঠ গায়িকা প্রিয়াংকা গোপ, শ্রেষ্ঠ গীতিকার আমিরুল ইসলাম, শ্রেষ্ঠ সুরকার এস আই টুটুল, শ্রেষ্ঠ কাহিনীকার মাসুম রেজা, শ্রেষ্ঠ চিত্রনাট্যকার যুগ্মভাবে মাসুম রেজা ও মো. রিয়াজুল মওলা রিজু।

শ্রেষ্ঠ সংলাপ রচয়িতার পুরষ্কার  লাভ করেছেন প্রয়াত সাহিত্যিক হুমায়ুন আহমেদ, শ্রেষ্ঠ সম্পাদক মেহেদী রনি, শ্রেষ্ঠ শিল্পনির্দেশক সামুরাই মারুফ, শ্রেষ্ঠ চিত্রগ্রাহক মাহফুজুর রহমান খান, শ্রেষ্ঠ শব্দগ্রাহক রতন কুমার পাল, শ্রেষ্ঠ পোশাক ও সাজ-সজ্জা মুসকান সুমাইয়া ও শ্রেষ্ঠ মেক-আপম্যান হিসেবে পুরস্কার পেয়েছেন শফিক।

এ আর

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন:
symphony

অনুরূপ সংবাদ

উপরে