আপনি আছেন
প্রচ্ছদ > চট্টগ্রাম > অজ্ঞাত রোগে শিশু মৃত্যুর কারণ অপুষ্টি

অজ্ঞাত রোগে শিশু মৃত্যুর কারণ অপুষ্টি

capture%e0%a7%a7%e0%a7%a7

প্রতিচ্ছবি চট্টগ্রাম প্রতিনিধি:

চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডের দুর্গম পাহাড়ি এলাকায় অজ্ঞাত রোগে শিশু মৃত্যুর কারণ অপুষ্টি। ঢাকা থেকে আসা বিশেষজ্ঞরা প্রাথমিকভাবে এ তথ্য জানিয়েছেন।

এদিকে টানা ৫ দিনে ৯ শিশুর মৃত্যুতে ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর মানুষদের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে।

এখনও চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালসহ বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি রয়েছে ৪৬ শিশু। এর মধ্যে অনেক রোগির কিছুটা উন্নতি হলেও চট্টগ্রাম মেডিকেলে ভর্তি দুই শিশুর অবস্থা আশংকাজনক বলে জানিয়েছেন  চিকিৎসকরা।

চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডের সোনাইছড়ি ইউনিয়নের দুর্গম পাহাড়ী এলাকা (জুম্মা পাড়া)  ত্রিপুরা পাড়ায় অজ্ঞাত রোগে টানা পাঁচ দিনে অন্তত ৯টি শিশুর মৃত্যু হয়ে। এর মধ্যে বুধবার সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত মারা যায় ৪ শিশু।  আজ বৃহস্পতিবার হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে আরো সাত শিশুকে।

ঢাকা থেকে আসা আইইডিসিআর এর বিশেষজ্ঞ দল চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ও  ফৌজদারহাটের আইডি হাসপাতাল ঘুরে আক্রান্তদের থেকে বিভিন্ন নমুনা সংগ্রহ করেছেন। পরে সাংবাদিকদের তারা জানান, প্রাথমিকভাবে তারা মনে করছেন রোগের কারণ অপুষ্টি। দলটির নেতৃত্ব দিচ্ছেন আই ই ডি সি আর-এর চীফ সাইন্টিফিক অফিসার ফারুক আহম্মেদ ভুঁইয়া।

তিনি বলেন, ‘রক্তের ইলেট্রোলাইট পরীক্ষায় এখন পর্যন্ত যে তথ্য আমরা পেয়েছি  তাতে মনে হয়েছে অপুষ্টিতেই তাদের মৃত্যু হয়েছে। আর এখানে যে চিকিৎসকরা রয়েছেন তারাও সেভাবেই চিকিৎসা করে যাচ্ছেন। এতে আমার মনে হয় চিকিৎসায় গাফিলতির কারণে কোন মৃত্যু হয়নি। এখন অনেকের অবস্থারই উন্নতি হচ্ছে। আমরা আরো অনুসন্ধান করে দেখছি। আর এটা অন্য কোন ভাইরাস কি-না আমরা সেটাও পরীক্ষা করে দেখছি।’

আগামী কয়েকদিনের মধ্যেই আক্রান্তদের থেকে সংগ্রহ করা নমুনা পরীক্ষার পর রোগ সম্পর্কে জানা যাবে বলে জানান বিশেষজ্ঞরা।

এদিকে সীতাকুণ্ডের দুর্গম পাহাড়ি এলাকায় ক্ষুদ্র নৃগোষ্টিদের অজ্ঞাত রোগে আক্রান্ত শিশুরা জন্ম থেকেই টিকা পায়নি। আর অভাবের কারণে পুষ্টিকর খাবারও পায় না বলে স্থানীয়দের সাথে কথা বলে জানা গেছে। আক্রান্ত শিশুদের স্বজনরা বলেন,শিশু জন্মের পর থেকেই কোন টিকা পায়নি তারা। তবে আশপাশে  টিকাদান কেন্দ্র না থাকাসহ স্বাস্থ্যকর্মীরা ওই এলাকায় যায় না বলে অভিযোগও করেছেন রোগির স্বজনরা।

এদিকে চট্টগ্রামের সিভিল সার্জন আজিজুর রহমান সিদ্দীকী জানােলন, বিষয়টি নিয়ে তদন্ত কমিটি গঠন করা হবে ।

তিনি বলেন, ‘যে এলাকায় ঘটনা ঘটেছে সেখানে আরো অনেক শিশু রয়েছে তাদেরও স্বাস্থ্য বিভাগ থেকে আমরা পুষ্টির ব্যবস্থা করব। সিভিল সার্জন অফিস থেকে তিন সদস্যের একটি দল গঠন করা হয়েছে। এছাড়া উপজেলা থেকেও পুরো বিষয়টি তদন্তে একটি টিম করা হয়েছে। আপাতত আমরা সবাইমিলে নিশ্চিত হয়েছি এটা নিয়ে আতঙ্কের কিছু নেই।’

নয়ন বড়ুয়া জয় / ডিডিআর

 

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন:
symphony

অনুরূপ সংবাদ

উপরে