আপনি আছেন
প্রচ্ছদ > বিজ্ঞান প্রযুক্তি > রোবট দুনিয়ায় নতুন বিস্ময় এরিকা

রোবট দুনিয়ায় নতুন বিস্ময় এরিকা

hqdefaultপ্রতিচ্ছবি ডেস্ক:

রোবটের দুনিয়ার নতুন বিস্ময় এরিকা। জাপানী তরুনী। বয়স ২৩। অবিকল মানুষের মতো। সুন্দর তার চেহারা, কথা বলা আর তাকানোর ভঙ্গিও অপরুপ। নিজের মতো করে প্রশ্ন করতে পারে। ভেবে চিন্তে উত্তরও দিতে পারে। দেখে বোঝার উপায় নেই- সে রক্ত-মাংসের কোনো মানুষ নয়। কিন্তু তার ভেতরটা ভর্তি নানা কল-কবজায়।

এরিকার জন্মদাতা ড. হিরোশি ইশিগুরো, জাপানের রোবটিক জগতে ‘ব্যাড বয়েস’ হিসেবেই পরিচিতি তার। আর্কিক্টেট ড. ডায়লানকে সঙ্গি করে মানুষের কাছাকাছি কিছু সৃষ্টি করতে চেয়েছেন তারা। মেশিন নয় শৈল্পিক দিককেই গুরুত্ব দিয়েছেন দুই বিজ্ঞানী। জাপানের কিয়োটায় এডভান্স টেলিকমিউনিকেশন রিসার্স ইন্সটিটিউটে দীর্ঘ গবেষণা ও কষ্টের পর সাফল্যের ফলে আসে-এরিকা।

এরিকা মেশিন হলেও নিজেকে মানুষ ভাবতেই পছন্দ করে। চার দেয়ালের বন্দিদশা থেকে মানুষের পৃথিবীতে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করতে চায় এরিকা। মানুষের সঙ্গে মিশতে চায়, সম্পর্ক তৈরি করতে চায়। দেখতে চায় মানুষের পৃথিবীকে।

এরিকার ভেতরে ১৪টি গভীর সেন্সর রয়েছে। যার মাধ্যমে যেকোন শব্দ শনাক্ত করতে পারে।  তার আশপাশে থাকা যেকোন মানুষ বা প্রাণীর উপস্থিতিও শনাক্ত করতে পারে সে। প্রাণী আর মেশিনের সঙ্গে পার্থক্যটাও তার কাছে ষ্পষ্ট। রোবটকে শুধুমাত্র সামরিক ও গবেষণাগারে ব্যবহার না করে মানুষের দৈনন্দিন কাজে ব্যবহারে আগ্রহী এরিকা। মানুষের পাশে থেকে তাদের সহযোগী হিসেবে কাজ করতে চান এরিকা।

ড. হিরোশি ইশিগুরো মনে করেন প্রত্যেক মানুষের ভেতরে রয়েছে আত্মা। তিনি মনে করেন এরিকাও ঠিক একই রকম অনুভূত করেন।

এরিকার মতো রোবটকে মানুষের পৃথিবীতে উন্মুক্ত করতে চান ইশিগুরো। আগামীতে রোবট-মানুষের সমন্বয়ে নতুন এক বিশ্ব গড়তে চান তিনি।

দেখুন ভিডিও…

 

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন:

অনুরূপ সংবাদ

উপরে