আপনি আছেন
প্রচ্ছদ > ফ্যাশন এন্ড বিউটি > এই আবহাওয়ায় প্রাকৃতিকভাবে চুলের যত্ন

এই আবহাওয়ায় প্রাকৃতিকভাবে চুলের যত্ন

১০ মে ২০১৭

প্রতিচ্ছবি বিউটি ডেস্ক

আবহাওয়া রঙ বদলাচ্ছে ক্ষনে ক্ষনে। কখনো বৃষ্টি, কখনো রোদ, কখনো ঝড়ো বাতাস কিংবা রোদ বৃষ্টির লুকোচুরি। এমন অবস্থায় চুলের শাইনি আর ঝরঝরে ভাবটা যেন  কিছুতেই থাকতে চায়না। বাহিরে বের হলেই প্রতিমুহূর্তে ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে আমাদের চুল। সারাদিন ক্লাস, অফিস, বা বাহিরে ঘুরে হয়তো নজর দেয়া হচ্ছে না চুলের দিকে। ফলে দিন দিন নষ্ট হচ্ছে আমাদের সখের চুল।

Model with beautiful curly hair, fashion, and makeup

কি করতে পারি এমন আবহাওয়ায়? সময় কোথায়? ভাববেন না, আপনার জন্য রয়েছে ঝটপট কিছু সমস্যার সমাধান। যাতে সময়ও বাঁচবে আবার পরিপূর্ণ পুষ্টি পাবে চুল। ঝলমলে থাকবে সারাদিন।

এখন যেহেতু গরমকাল তাই প্রচুর পানি খাওয়ার কথা সবাই বলেই থাকবেন। তবে তার সাথে যুক্ত করুন ভিটামিন সি জাতীয় খাবার। শরবত খান চিনি ছাড়া। আয়রন জাতীয় খাবার  খাওয়া অত্যাবশ্যক। এতে চুলের ফলিকল গুলো থাকবে মজবুত।

চুলে ঘাম জমে সৃষ্টি হতে পারে খুশকির। একদিন অন্তর অন্তর শ্যাম্পু করুন। অনেকের ধারনা প্রায়শই শ্যাম্পু করলে চুল ক্ষতিগ্রস্থ হয়। এ ধারনা মোটেই ঠিক নয়। নিজের চুলের ধরন অনুযায়ী সঠিক শ্যাম্পু বাছাই করতে পারলে, তা আপনার জন্য আশীর্বাদ হিসেবে কাজ করবে। তাছাড়া মাথায় ঘাম হলে যতদ্রুত সম্ভব বাতাসে শুকিয়ে নিন। মাথায় বৃষ্টির পানি পড়েলেও সাথে সাথে শুকিয়ে ফেলার চেষ্টা করুন। আর বেশী রোদ কিংবা এয়ার কুলারের তাপমাত্রা আপনার চুলকে করে দেয় নির্জীব নিষ্প্রাণ। তাই মাথায় হালকা সুতি কিংবা সিল্কের স্কার্ফ পেঁচিয়ে রাখতে পারেন।

সপ্তাহে অন্তত তিনদিন মাথায় তেল লাগিয়ে ম্যাসাজ করুন। আর একদিন হট ওয়েল ম্যাসাজ চুলের বৃদ্ধিতে সাহায্য করবে। দিনে ৩ থেকে ৪ বার ভাল করে চুল আঁচড়ানো চুলের স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী।

ছুটির দিনে ব্যবহার করতে পারেন বিভিন্ন হেয়ার প্যাক। বাজারে ভাল ভাল কোম্পানির কিছু প্যাক আছে যা সত্যি উপকারী (এ নিয়ে বিস্তারিত আগামী আর্টিকেলে)। এবার আসি কিছু প্রাকৃতিক উপাদানে তৈরী হেয়ার প্যাকের কথায় যা ঘরে বসেই বানানো যায়।

curd-hair-loss-2১.টকদইঃ চুলের জন্য খুব বেশী উপকারী উপাদান হলো টকদই। যার জুরি মেলা ভার। যেকোন ধরনের চুলে খুব সহজেই মানিয়ে যায় এবং ব্যবহারে চুল হয় ঝরঝরা, উজ্জ্বল, মসৃণ। কলা, মধু, এলোভেরা দিয়ে দই মিশিয়ে খুব সহজেই  চুলের শাইনি ভাব ফিরিয়ে নিয়ে আসতে পারেন। দই দিয়ে বানানো প্যাক টি ২০/৩০ মিনিট রেখে শ্যাম্পু করে ফেলতে হবে।

২.মেথিঃ চুলের মসৃনতা ফিরিয়ে আনতে মেথির তুলনা নেই। সারারাত পানিতে ভিজিয়ে রেখে বেটে চুলে মাখলে চুল হবে মজবুত। দেখাবে গ্লসি/শাইনি।

honey-lemon-620_620x350_41480678317৩.মধুঃ মধু একটি প্রাকৃতিক ময়েসচারাইজার ।এটি রুক্ষ চুলের হারান সৌন্দর্য ফিরিয়ে আনতে সাহায্য করে। চুলে জোগায় কোমল মোলায়েম ভাব।  চুলে অকালপক্বতা রোধে মধু বেশ কার্যকরী। তবে যাদের মাথার স্কাল্প বেশী তৈলাক্ত এবং যাদের মাথা তালু সবসময় বেশী গরম থাকে তাদের মধু না ব্যবহার করাই ভাল।

৪.লেবুঃ চুলের খুশকি , যেকোন ইচিং, বা প্রদাহের কারনে লেবু ব্যবহার খুবই উত্তম। তাছাড়া লেবুর সাইট্রিক এসিড চুলের খুশকিকে বারবার ফিরে আসতে বাধা দেয়। গোসলের পর পানিতে গোলানো লেবুর রস চুলকে করবে ঝরঝরে।

Still Life red onion and ginger with stone mortal

৫.পিঁয়াজঃ চুল গজানোর জন্য কার্যকরী ও মিরাকেল উপাদান পিঁয়াজ। সালফারে সমৃদ্ধ এই মশলা নতুন চুল গজাতে সাহায্য করে। চুল পড়া বন্ধ করে। চুলের বৃদ্ধিতে অনবদ্য ।

৬.আদাঃ চুল পড়া রোধে বর্তমানে খুব কার্যকরী উপাদান আদা। কি অবাক হচ্ছেন? গবেষণায় দেখা গেছে আদার রসে প্রচুর সোডিয়াম,পটাশিয়াম, ম্যাগ্নেশিয়াম থাকে যা চুল গজানোতে সাহায্য করে। তাছাড়া আদার রস মাথার স্কাল্পকে প্রদাহ ও খুশকিমুক্ত রাখে। গোসলের ৩০ মিনিট আগে মাথার স্কাল্পে লাগিয়ে শ্যাম্পু করে নিতে হবে।

egg-and-aloe-vera-pack৭.ডিমঃপ্রাকৃতিক প্রোটিনের অন্যতম উৎস ডিম। সপ্তাহে একদিন হেনা পাউডার বা কোন হেয়ার প্যাকের সাথে ডিম মিশিয়ে লাগালে চুল পড়া রোধ হয়।

 ৮.এলোভেরাঃ  বর্তমান যুগে চুলের যত্নে এর ব্যবহার খুব বেশী লক্ষনীয়। চুলের আর্দ্রতা ধরে রেখে, রেশম, মোলায়েম, প্রাণবন্ত করে চুলকে। তাছাড়া এলভেরার কুলিং ইফেক্ট চুলকে লক্ষনীয় ভাবে সতেজ রাখে।

 এভাবে প্রাকৃতিক উপাদান দিয়ে খুব সহজেই পেতে পারি স্বাস্থ্যজ্জ্বোল সুন্দর চুল। বেশী কিছু নয়, সামান্য কিছু কমদামি ঘরোয়া উপাদানেই যত্ন নেয়া  ।চুল চর্চার পাশাপাশি পুষ্টিকর খাবারও খেতে হবে। সবকিছু মিলিয়ে আমরা হয়ে ওঠতে পারি সুন্দর, পেতে পারি পছন্দমত চুল।

 

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন:

অনুরূপ সংবাদ

উপরে